অকে,আগেই বলে নেই,বাহুবলী মুক্তি পেয়েছে শুক্কুরে শুক্কুরে ২ দিন!
আর পোলাপানে এইডা নিয়া চিল্লাচিল্লি করতেসে আইজ দুইবছর।
এই দুই বছরে কত কিছু হয়ে গেল!
আমার ব্রেক আপ হয়ে গেছে! (কয়দিন পরে দুই বছর ফুর্তিতে মিলাদ হবে।জিলাপি লোভীরা আমন্ত্রিত)
ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট হই গেছে।
নোয়াখালি বিভাগ হয়ে গেছে,

চাইলে আর কি কি হয়ে গেছে তার ফিরিস্তি ও দেওয়া যাবে,কিন্তু দুই বছরে বাহুবালি নিয়ে চিল্লাপাল্লা তো কমেই নি,বরং আরো বাড়ছে!
উপরন্তু এই একমাসে চিল্লাচিল্লির পাশাপাশি অতিমাত্রায় ফালাফালি,গালাগালি,মারামারি,এমনকি স্পয়লার দেওয়া নিয়ে হাতাহাতি ও হয়ে গেছে!

সে যাকগে,ইস্যু ব্যাপারটা কিছু কিছু ব্যাপারে সংক্রামকের মত।আর তা যদি হয় মুভি নিয়ে,তাহলে আমার তাতে সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকি ৯০%।
তার উপর নিউজফিডটাকে কাটাপ্পার ধুতির মত বানায়া রাখসে আমফেসবুকারেরা!
সবার একটাই প্রশ্ন,কেন কাটাপ্পা বাহুবলিরে মারলো।কেন,তাদের না মেরে কেন বাহিবালির মত নিষ্পাপ পোলারে স্বর্গে পাঠাই দিল।ক্যান ক্যান ক্যান!
এই দুই বছরে কাটাপ্পার নাম যতবার বাংগালী উচ্চারন করেছে ততবার আল্লাহ-খোদার নাম নিলে তামাম বাঙ্গালীর জান্নাতের টিকিট কনফার্ম হয়ে যাইতো!

সে যাকগে।এই বাংগালীকে ঠান্ডা করার জন্যেই আমি নিতান্ত বাধ্য হয়ে বাহুবলির রিভিউ দিতে বসলাম।তাও যেই আমি জীবনেও ব্লু রে ছাড়া অন্য কোন প্রিন্টরে জাতের মনে করি নাই,সে আমি ক্যাম রিপে দেইখা তামাম বাঙ্গালী বহুল প্রতিক্ষিত প্রশ্নের উত্তর দিতে বসলাম।শুধু কি মুভি?গুগল সার্চ করে বাহুবলিকে নিয়ে তামাম দুনিয়ার সব বাহুবালি লাভারদের লেখা রিভিউ পড়ে মুখস্ত করেই লিখতে বসলাম!
স্পয়লার মনে করে লেখার এই পর্যায়ে অনেকেই,”শালার্পুত উপরে কইলি না কেন এইডাত্তে স্পয়লার আছে!” বলে গাইল দেওয়ার জন্যে কমেন্ট করার জন্যে রণপ্রস্তুতি নিচ্ছে।নিলে নেউক!দিম না স্পয়লার এলার্ট!
মুভির টাইমলাইন লেখা নাই!

তাই ধইরা নিলাম এইডা হইলো হিস্টোরিকাল ফিকশন ধাঁচের মুভি! অথবা আপনার ইচ্ছামত একটা টাইমলাইন সেট করে নিতে পারেন।তাতে রাজমৌলি চেতবে না।কারন সে চেতার মুডে নাই এখন!
এই সিনেমার প্রধান এবং এক নাম্বার আকর্ষন ছিল, দেবসেনা চরিত্রে আনুশকা শেঠি।
তার এন্ট্রি সিন তেমন ভালো না হইলে ও কমেডি গুলা দুর্দান্ত ছিল।
আমি প্রচুর হেসেছি তার কমেডি দেখে!মিঃ বিন ও ফেইল!
এই জন্যে তাকে আমি অয়নাসেই ১০ এ ৯ দিবো।(পুরাটাই দিতাম।কিন্তু তার চার্লি চ্যাপলিনেরে নকল করাটা পছন্দ হয়নাই!

আর এই সিনেমার আরো একটি দিক হইলো,এতে প্রচুর কাটাকাটি,মারামারি,ভাঙ্গাভাঙ্গি ও আছে।তবে এই মুভিতে কোন গাড়ি ভাঙ্গে নাই।
এর পরিচালক রাজমৌলি না হয়ে যদি মাইকেল বে কিংবা রোহিত শেটী হইতো তাইলে অবশ্যি গাড়ি ভাংতো।এইডা আমি হলফ করেই বলতে পারি!

ছবির নায়ক-নায়িকা চরিত্রে অভিনয় করা প্রভাস ও রানা দাজ্ঞুবতী ছিলেন পুরাই লা জওয়াব।
রোমান্সের দৃশ্যে বলেন আর একশ্যন সিকোয়েন্স বলেন,দুজনেই ফাটিয়ে অভিনয় করেছেন।
নায়কের ডায়লগ ডেলিভারি আর নায়িকার একশ্যন।আহা চখাম!
একেবারে জাতের অভিনয় যাকে বলে।
লিখে রাখেন এই দুইজন অনেক গুলা এওয়ার্ড বাগিয়ে নিবেন!
তবে হতাশার ব্যাপার হইলো,রোমান্সের সিন অনেক কম ছিল!

বিশ্বাস করেন,পুরা মুভিতে নায়ক-নায়িকার(প্রভাস-রানার) কোন কিসিং সিন নাই।
না থাকার কারনে ফ্যামিলি নিয়া ও মুভি দেখতে পারবেন।
একলা দেখে কোন মজা পাবেন না!
বল্লাল দেব নামক ভিলেন চরিত্রে কাটাপ্পা যথারিতি মারমার কাটকাট অভিনয় করেছেন।আমার তো নায়ক-নায়িকার চেয়ে ভিলেন চরিত্রটিই অনেক ভালো লেগেছে।
একেবারে পয়সা উসুল ক্যারেক্টার যাকে বলে।

ভালো লাগে নাই কেবল শিভগামীর ক্যারেক্টার।তারে আমার ফুটবলের রেফারিদের মত মনে হইসে।খালি অন্যের কাজের মধ্যে বাঁ-হাত ঢুকানির স্বভাব! এর কারনেই আমি পুরা মুভিটাকে ১০ এ ৯ দিবো।নইলে কিন্তু ১০ এ ১০ দিতাম!
মুভির গ্রাফিক্স একেবারে ফ্যাট এন্ড ফিউরিয়াস মানের।কাজেই হতাশ হওয়ার কোন সুযোগ নাই,আগেবাগে বলে দিলাম।
বাহুবলির প্রতিটা চরিত্রই অস্কারজয়ী পারফরমেন্স করলে তাদের কিংবা মুভিটির অস্কার পাবার কোন সম্ভাবনা নাই বললেই চলে।
কারন অস্কার কমিটি হইলো অন্ধ,এরা খালি হলিউডিদের মধ্যে অস্কার ভাগ করে দেয়।
এইসব মাস্টারপিস মুভির মূল্যায়নের কোন আক্কেলজ্ঞানই বিধাতা তাদের কস্মিন কালেও দিয়েছে বলে মনে হয় না!

আর মুভিটি কুটিকুটি টাকা কামাচ্ছে!না জানি তাদের পকেট কতবড়।এত টাকা রাখবে কই।আমি কিঞ্চিত চিন্তিত বটে

ও হ্যা আসল কথায় আসি,কাটাপ্পা বাহুবলিরে মারসে ক্যান!
আসল কাহিনি জানতে হইলে।,আপনাকে প্রথমে বাহুবালি বিগিনিং দেখতে হবে।
তাইলে আপনার মনে প্রশ্ন জাগবে ক্যান কাটাপ্পা বাহুবলিরে মারসে।
আর বাহুবলি টু দেখার আগে আপনাকে নোয়াখালি,বিভাগ,কুমিল্লা,বরিশাল এইসব কী-ওয়ার্ড গুগলে সার্চ দিইয়ে ইতিহাস জানতে হবে!
নইলে বাহুবলি টু দেখে ও প্রশ্নের উত্তর পাবেন না।

আর আপনি যদি অলরেডি এই কাজটি করে থাকেন,তাইলে দেরি না করে,বেহুদা এম্বির শ্রাদ্ধ করে চোরাই ক্যামরিপ নামিয়ে ঝকঝকে ঘোলা প্রিন্ট দিয়ে দেখে ফেলুন,এই বছরের তো বটেই,সর্বকালের সেরা অন্যতম হিস্টোরিকাল ফিকশন মুভিটি!
আমি রিভিউ লিখতে জানি না।তারপরেও কত সুন্দর কইরা রিভিউ লিখলাম।দেখার আগে অবশ্যই একটা ধন্যবাদ দিয়ে যাবেন।
কত কস্ট করে লিখসি মিয়া!

আইএমডিবি রেটিংঃ৯.৯!(আইএমডিবি দেখি নাই।নিউজফিড দেখে আন্দাজ করলাম)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here